Wednesday, 31 January 2018

মাইক্রোসফট এক্সেল (পর্ব- ৩)


স্বাগতম সবাইকে আমারব্লগবিডি২৪ ব্লগে। গত তিনটা ব্লগে আমরা মাইক্রোসফট এক্সেল এর প্রাথমিক ধারনা থেকে শুরু করে যোগ, বিয়োগ, গুন, ভাগ সহ বেশি কিছু গাণিতিক সমস্যা ও তার সমাধান দেখেছিলাম। আজকের ব্লগে আমরা এক্সেলের তিন ধরনের গ্রাফ ও চার্ট নিয়ে আলোচনা করব। 
যে সকল গ্রাফ ও চার্ট দেখব আজকে তা হলে- 

১। লাইন চার্ট ( Line Chart )
২। কলাম চার্ট ( Column Chart ) ও
৩। পাই চার্ট ( Pie Ghart )


  • লাইন চার্ট ঃ  অনেক গুলো তথ্য কে যখন ডট দিয়ে ডিসপ্লে করা হয় লাইন আকারে তখন তাকে লাইন চার্ট বা লাইন গ্রাফ বলে। 
     http://velocicosm.com/5Rlk


লাইন চার্টের পুরো বিষয় বস্তু সম্পর্কে জানতে আমাদের ভিডিও টি দেখুন-


  • কলাম চার্ট ঃ একই রকমের অনেকগুলো তথ্যকে যখন আমরা কলাম বা সারি আকারে প্রকাশ করি তখন সেই গ্রাফ বা চার্টকে কলাম চার্ট বলে।



  • পাই চার্ট ঃ একটি পাই চার্ট হল একটি বৃত্তাকার পরিসংখ্যানগত গ্রাফিক যা সংখ্যাসূচক অনুপাতকে ব্যাখ্যা করার জন্য স্লাইসগুলিতে ভাগ করা হয়। একটি পাই চার্টে, প্রতিটি স্লাইসের চাপের দৈর্ঘ্য, এটি প্রতিনিধিত্ব করে এমন পরিমাণের সমানুপাতিক।



তিনটা ভিডিও দেখলে, আশা করি আপনারা এক্সেল দিয়ে যে কোন ধরনের চার্ট বা গ্রাফ বানাতে পারবেন।
ধন্যবাদ সবাইকে আমাদের সাথে থাকার জন্য। আমাদের ব্লগে ও ইউটিউব চ্যানেলের সাথেই থাকুন। 

Visit Our Official website for learning more- www.itschool24.com

Monday, 22 January 2018

কিভাবে আপনার কম্পিউটার এর স্পিড বাড়াবেন?

আমরা কম্পিউটার যখন প্রথম বাজার থেকে কিনে এনে ব্যবহার করি তখন কম্পিউটার এর স্পিড থাকে অনেক ভাল। কম্পিউটার হ্যাং হয় না। কিন্তু কিছু দিন ব্যবহার এর পর কম্পিউটার স্লো হয়ে যায়।মনে হয় পিসির গতি  কমে গেছে বা কাজ করার সময় হ্যাং হয়ে যাচ্ছে। হ্যা, এরকম সমস্যা কম্পিউটার এর হয়। আমরা সমাধান হিসাবে একটা কাজই প্রায়ই করি তা হল আবার অপারেটিং সিস্টেম সেট আপ করা। কিন্তু এটা আসলে সঠিক সমাধান না। 
তাহলে আমরা কি করব এর সমাধান হিসাবে? আমরা আমাদের কম্পিউটারে একটা সফটওয়্যার ইন্সটল করব। সেই সফটওয়্যার কে রান করলে কম্পিউটাররের অপ্রয়োজনীয় ফাইল ও ডাটা সমূহকে ডিলিট করবে। ফলে কম্পিটার এর হার্ডডিস্ক থাকবে সুরক্ষিত। কম্পিউটার ফিরে পাবে পূর্বের মত গতি। 
আমরা যখন কম্পিটারে কাজ করি প্রতিদিন, তখন কম্পিউটার যে সকল ডাটা নিয়ে কাজ করে তা অস্থায়ী ভাবে সি ড্রাইভে রয়ে যায়। আমাদের উচিত প্রতিদিন কম্পিউটার অফ করিবার পূর্বে সেই সকল অপ্রয়োজনীয়  ডাটা ডিলিট করে দেয়া।
সফটওয়্যার ডাউনলোড লিঙ্কঃ   https://www.piriform.com/ccleaner/download
 কোন সফটওয়্যার, কিভাবে আমরা ইন্সটল দিব যাবতীয় ভিডিও নির্দেশনা দেখুন এই লিঙ্ক - https://www.youtube.com/watch?v=Dues_ZPNCPc&pbjreload=10 



আজ এই পর্যন্তই । ধন্যবাদ সবাইকে। আমাদের ইউটিউব চ্যানেল কে সাবস্ক্রাইব করুন আর আমাদের পরবর্তী পোস্ট ও ভিডিও দেখুন। 



Visit Our Official website for learning more- www.itschool24.com

Saturday, 20 January 2018

কিভাবে ইউটিউব ভিডিও প্লে-লিস্ট তৈরি করা যায়?

আমরা ইউটিউব চিনি না এমন মানুষের সংখ্যা খুব কম। ২০০৫ সালে প্রথম ইউটিউব এর যাত্রা শুরু হয় আমেরিকাতে। Chad Hurley, Steve Chen এবং Jawed Karim (বাংলাদেশি বংশদুত) যারা ইউটিউব এর প্রতিষ্ঠাতা। প্রতিদিন ইউটিউবে লক্ষ লক্ষ ভিডিও আপলোড হয় পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে। বিভিন্ন ক্যাটেগরির ভিডিও আমরা দেখতে পাই ইউটিউবে। যেমন- 
শিক্ষা, সাস্থ, তথ্য-প্রযুক্তি, বিনোদন, খেলাধুলা সহ সব ধনের ভিডিও আমরা দেখতে পাই ইউটিউবে। আপনার যদি একটি জি-মেইল একাউন্ট থাকে তাহলেই আপনি ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন। এমনকি সেই ভিডিওকে মনেটাইজ করে ইনকামও করতে পারবেন ইউটিউব থেকে।গুগল অ্যাডসেন্স ইউটিউবের ভিডিওতে অ্যাড প্রদান করে থাকে। ইউটিউব  ক্রিয়েটর ও গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাড এর লভ্যাংশ ইউটিউবার ও তাদের মধ্যে ভাগ করে নেয় হয়।এ নিয়ে আমরা বিস্তারিত পরবর্তী ব্লগে লিখব।


আজ এই পর্যন্ত। ভাল থাকুন সবাই। আর হ্যা আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি 
সাবস্ক্রাইব করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ। 





টিমভিউয়ার দিয়ে আপনার বন্ধুর কম্পিউটার এক্সেস করতে চান?

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা জানব দারুন একটি কম্পিউটার টেকনোলজি সম্পর্কে। 

আমরা এখন অনেকেই ইন্টারনেট ব্যবহার করছি আমাদের পিসি বা মোবাইল থেকে। আমরা স্কাইপ, ভাইভার দিয়ে আমাদের বন্ধুদের সাথে ভিডিও কল করতে পারি। কিন্তু আপনি কি জানেন আপনার পিসিতে বসে আপনার বন্ধু পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুক না কেন, তার পিসিতে আপনি এক্সেস/চালাতে পারবেন? হ্যা এটা সত্যি ! এ জন্য আপনার এবং আপনি যার পিসি এক্সেস/চালাবেন উভয়ের পিসিতে টিমভিউয়ার (teamviewer) নামক একটি সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হবে। 

 টিমভিউয়ার (teamviewer) ব্যবহার করলে আপনি কি কি সুবিধা পাবেন?

১। আপনি আপনার স্থানে বসে আপনার বন্ধুর পিসির যে কোন সমস্যা সমাধান করে দিতে পারবেন।
২। অডিও কল এ কথা বলতে পারবেন। 
৩। আপনার মাউজ/ কীবোর্ড ইউজ করে আপনার বন্ধুর পিসি ইউজ করতে পারবেন!
৪। আপনি চাইলেই যখন ইচ্ছে তখন টিমভিউয়ার (teamviewer) অফ করে দিতে পারবেন। 
কোন প্রকার জি-মেইল দিয়ে আইডি তৈরি করার কোন ঝামেলা করতে হবে না। 

পুরো প্রসেসটি খুবই সহজ এবং একদম ফ্রি! আমাদের ভিডিওটি দেখে শিখে ফেলুন কিভাবে তা করবেন। 



Friday, 19 January 2018

মাইক্রোসফট এক্সেল (Microsoft Excel) পর্ব-২

স্বাগতম বন্ধুরা, গত ব্লগে আমরা দেখেছিলাম এক্সলে নিয়ে প্রথম পর্ব। আজকের দ্বিতীয় পর্বে আমরা জানার চেস্টার করব -
১। শতকরা হিসাব (Percentage Calculation)
২। মাসিক ও বাৎসরিক বেতন হিসাব (Salary Calculation)এবং
৩। গ্রেড, জিপিএ ও সিজিপিএ নির্ণয় (Find Grade, GPA and CGPA )

v শতকরা হিসাব (Percentage Calculation)

আমরা ছোট বেলায় শতকরা হিসাবের অংক করেছিলাম। আজ সেই সূত্র এক্সেলে ব্যবহার করা শিখব।
ধরুন, একটি বই এর ক্রয়মুল্য- ১১০ টাকা ও বিক্রয় মূল্য -১২০ টাকা। তাহলে ওই বইটির শতকরা লাভ বা ক্ষতি কত?
সুত্রঃ
    বিক্রয় মূল্য- ক্রয় মুল্য= লাভ [যদি বিক্রয় মূল্য বেশী হয়]
তাহলে বইটি লাভে বিক্রয় হইছে।
লাভের পরিমান= ১২০-১১০= ১০ টাকা
এবার, ১১০ টাকায় লাভ হয় ১০ টাকা
       ১  ,,    ,, ,,  ১০/১১০ টাকা
এবং   ১০০ ,,    ,,  ,,  (১০*১০০)/১১০ = ৯.০৯%

  
আরেকটি উদাহরণ – কমিশন ও মূল টাকা নিয়ে 



ভাল করে বুঝতে হলে নিচের ভিডিওটি দেখুন-

v মাসিক ও বাৎসরিক বেতন হিসাব (Salary Calculation)

কোন অফিসের জন্য বেতন হিসাব করা একটি গুরত্বপুরন কাজ। কিভাবে এক্সেলে করবেন তা পিকচারে দেখুন-



কাজটি আরও ভালভাবে বুঝতে চাইলে নিচে দেয়া ভিডিওটি দেখুন-


v গ্রেড, জিপিএ ও সিজিপিএ নির্ণয় (Find Grade, GPA and CGPA )

স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা চায় যে নিজের রেজাল্ট নিজেরাই বেড় করবে। হ্যা এক্সেল দিয়ে আপনি তা করতে পারেন। কিভাবে বেড় করবেন? প্রথমে এক্সেলে একটি টেবিল বানিয়ে নিন ঠিক নিচের দেয়া পিকচারের মত-



আপনার পরীক্ষার বিষয় ও প্রাপ্ত নম্বর দিয়ে টেবিলটি বানিয়ে নিন।
এর পর শুধু আপনি একটা ফর্মুলা ব্যবহার করে বেড় করুন গ্রেড,
দ্বিতীয় ফর্মুলা ব্যবহার করে বেড় করুন জিপিএ এবং ৩য় ফর্মুলা ব্যবহার করে বেড় করুন সিজিপিএ
পুরো কাজটা শিখতে হলে নিচের দেয়া দুইটি ভিডিও দেখুন-






আজ এই পর্যন্ত, আগামি ব্লগে আমরা এক্সেলের আরো ব্যবহার নিয়ে হাজির হব আপনাদের জন্য। ধন্যবাদ সকলে আর হ্যা আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটিকে Subscribe করুন।







Monday, 15 January 2018

মাইক্রোসফট এক্সেল (Microsoft Excel) পর্ব-১

মাইক্রোসফট এক্সেল Microsoft Office এর একটি ফিচার যা Microsoft কোম্পানি বাজারে আনে ৩০ শে আগস্ট, ১৯৯২ সালে। মাইক্রোসফট অফিসের মধ্যে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড (MS Word),মাইক্রোসফট এক্সেল (MS Excel), মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্টসহ (MS PowerPoint) বেশ কিছু ফিচার যুক্ত আছে। প্রতিটা ফিচার আলাদা আলাদা কাজে ব্যবহার করা হয়। আজকে আমরা মাইক্রোসফট এক্সেলের একটি অংশ  সম্পর্কে জানার চেস্টা করব। এই পর্বে থাকবে-
১। এক্সেলের রো এবং কমাল সম্পর্কে  
২। কিভাবে এক্সেলে টেবিল বানানো যায়

তো প্রথমেই শুরু করা যাক মাইক্রোসফট এক্সেলের রো (Row) এবং কলাম(Column)সম্পর্কে।
  

চিত্রঃ রো ও কলাম

এক্সেলে মোট ৬৫৩৬ টি রো এবং ২৫৬ কলাম আছে। রো এবং কলামের সংখ্যা কম বা বেশি হতে পারে এর ভার্সন এর উপর। 1, 2, 3 ……………  6536 সংখ্যা গুলো বাম পাঁশে যা রো নির্দেশ করে। আর A, B, C, D, E, F, G, H…………  Alphabet গুলো কলাম নির্দেশ করে।



২। কিভাবে এক্সেলে টেবিল বানানো যায়



চিত্রঃ এক্সেল টেবিল

উপরের টেবিলটিতে আমরা কিছু কলাম আর কিছু রো দেখতে পাচ্ছি –
ক্রমিক নং, তারিখ, ইঙ্কাম/আয়, বিবরন, ব্যয়/খরচ, বিবরন, মোট আয়, মোট ব্যয়, জমা(TK). এগুলো সবগুলো কলামের নাম।


উপরের চিত্রটি দেখে আপনার টেবিল বানাতে পারবেন, এজন্য আপনাকে Border অপশনটি সেলেক্ট করতে হবে।



৩। এক্সেলে কিভাবে যোগ, বিয়োগ, গুন ও ভাগ করা যায়
এক্সেল দিয়ে খুব সহজে আপনি অনেক সংখ্যার যোগ করতে পারবেন।
Sum() ফাংশন ব্যবহার করে আমরা তা করতে পারি।
Example:  =sum(Row1:RowN)
Row1 = ১ম সংখ্যাটি, আর RowN বলতে বুঝায় বাকি যতগুলো রো আছে সব গুলো সেলেক্ট করা বুঝায়।
আমরা একটি ছোট ভিডিও দেখে যোগ, বিয়োগ, গুন ও ভাগ সবগুলোই সহজে শিখতে পারব। নিচে ভিডিও লিঙ্কটা দেয়া হল।


আজ এই পর্যন্ত। আগামি ব্লগে আমরা এক্সেলের বাকি ফিচার নিয়ে লিখব। আমাদের ইউটিউব চ্যানেলকে সাবস্ক্রাইব করুন আর আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ। 



Saturday, 6 January 2018

কিভাবে আপনার কম্পিউটারকে সুরক্ষিত রাখবেন?

আমাদের অনেকেরই ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ কম্পিউটার রয়েছে। অনেকেই ভাবেন যে কিভাবে এই যন্ত্রের সুরক্ষা রাখা যায়?
কম্পিউটারকে প্রধান তিনটি অংশে ভাগ করা হয়। এই অংশ গুলো হল-
১। হার্ডওয়্যার
২। সফটওয়্যার
৩। নেটওয়ার্ক  
আপনি যদি এই তিনটি অংশের যত্ননেন তাহলেই আপনার কম্পিউটার সুরক্ষিত থাকবে।
এখন প্রশ্ন হল কিভাবে এই তিনটি অংশের যত্ন নিবেন?
প্রথমেই হার্ডওয়্যার,
কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার বলতে আমরা বুঝি- মনিটর, মাদারবোর্ড, হার্ডডিস্ক, র‍্যাম, পাওয়ার সাপ্লাই, সিডি/ডিভিডি-রম, মাউস, কীবোর্ড ইদ্যাদি।
এসব যন্ত্রাংশগুলো খুব দামি হয়ে থাকে, তাই আমাদের উচিত এই সব যন্ত্রের সঠিক ব্যবহার করা। কোন ভাবে যাতে ধুলা-ময়লা বা তরল জাতীয় কিছু না পরে সে দিকে লক্ষ রাখতে হবে।
কম্পিউটারের প্রসেসের গরম হয়ে যাওয়া একটা বড় সমস্যা। তাই যত পারুন একে ঠান্ডা স্থানে রাখুন।
ল্যাপটপের চার্জ ১০০% হয়ে গেলে, চারজার খুলে রাখুন।




সফটওয়্যার,
কম্পিউটার এ আমরা বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকি বিভিন্ন কাজে।
যেমন- পিডিএফ(pdf) বই পড়ার জন্য- Adobe Acrobat, গান প্লে করার জন্য- VLC Media Player  ইত্যাদি । আমরা অনেক সময় না বুঝে অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার ইন্সটল করি আমাদের পিসিতে। ফলে আমাদের পিসির মেমরি ক্যাপাসিটি কমে যায়। ফলে আমাদের পিসির স্পিড অনেক কমে যায়। তাই আমাদের উচিত অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার Uninstall করে দেয়া।
আমরা কম্পিউটার-এ সাধারন Windows XP, 7, 8 কিংবা Windows 10  অপারেটিং সিস্টেম সেত-আপ দেই। কিছুদিন চালানোর পর পিসি হ্যাং বা স্লো হয়ে যায়। এর অন্যতম কারন হল- টেম্পরারি ফাইল/ ডাটা ডিলিট না করা। Start  >> Run এ গিয়ে Tree লিখে ওকে বাটনে ক্লিক করুন।

আমাদের পিসিতে ভিবিন্ন ধরনের ড্রাইভার সফটওয়্যার রয়েছে। যেমন- Realtek audio driver, Graphics  driver, Bluetooth driver, LAN driver  ইত্যাদি। এসকল ড্রাইভার সফটওয়্যার সমূহকে আপডেট রাখুন।
কম্পিউটার এ আমাদের মূল্যবান তথ্য থাকে তাই এসব কোন ভাবেই যেন ভাইরাস এ নষ্ট না করতে পারে সে দিকে লক্ষ্য রাখবেন। এ জন্য আপনার পিসিতে ভাল মানের আন্টিভাইরাস ইন্সটল করুন, এর পর নিয়মিত ইন্টারনেট এর মাধ্যমে আপডেট করুন। আমি পরবর্তী ব্লগে কম্পিউটার সিকিউরিটি নিয়ে লিখব, তখন এ নিয়ে আরো বিস্তারিত লিখব।

সব শেষ হল নেটওয়ার্ক এর যত্ন নেয়া। ইন্টারনেট, ওয়াইফাই, ব্লুটুথ এসব নেটওয়ার্কের অন্তর্ভুক্ত। যখন আপনি পিকচার, অডিও, ভিডিও বা যে কোন ধরনের তথ্য মোবাইল বা অন্য আরেক পিসি থেকে আপনার পিসিতে আনবেন তখন ভাইরাস আসার সম্ভাবনা থাকে। তাই এ দিকে লক্ষ্য রেখে অবস্যই ফাইল আদান-প্রদান করবেন। এ ক্ষেত্রে আপনি এন্টিভাইরাসের মাধ্যমে স্ক্যান করে তথ্য আদান-প্রদান করুন।

ধন্যবাদ আপনাকে আমাদের ব্লগের এক জন পাঠক হওয়ার জন্য ।